জাওয়াহিরিকে আশ্রয় দিয়ে তালেবান দোহা চুক্তি লংঘন করেছে: ব্লিনকেন

জাওয়াহিরিকে আশ্রয় দিয়ে তালেবান দোহা চুক্তি লংঘন করেছে: ব্লিনকেন

বাংলাভাষী ডেস্কঃঃ

 যুক্তরাষ্ট্র ও তালেবানের মধ্যে হওয়া দোহা চুক্তিতে কোনো জঙ্গি সংগঠনকে আফগানিস্তানের ভূখণ্ড ব্যবহার করতে দেওয়া হবে না বলে নিশ্চয়তা দিয়েছিল তালেবান।

 

আল কায়েদার শীর্ষ নেতা আয়মান আল-জাওয়াহিরিকে আশ্রয় দিয়ে তালেবান দোহা চুক্তি গুরুতরভাবে লংঘন করেছে বলে মন্তব্য করছেন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিনকেন।

 

সোমবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের হামলায় জাওয়াহিরির নিহত হওয়ার খবর জানান। নাম প্রকাশ না করা মার্কিন কর্মকর্তারা জানান, রোববার ভোরে কাবুলে সিআইএ-র ড্রোন হামলায় আল-কায়েদার এ শীর্ষ নেতার মৃত্যু হয়।

 

প্রতিষ্ঠাতা ওসামা বিন লাদেনের পর জাওয়াহিরির মৃত্যুই জঙ্গি গোষ্ঠীটির জন্য সবচেয়ে বড় ধাক্কা বলে বিবেচিত হচ্ছে, জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

 

কাতারের রাজধানী দোহায় ২০২০ সালে যুক্তরাষ্ট্র ও তালেবানের মধ্যে হওয়া চুক্তিতে আল-কায়েদাসহ কোনো সন্ত্রাসী-জঙ্গি সংগঠন বা ব্যক্তিকে আফগানিস্তানের ভূখণ্ড ব্যবহার করে যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্রদের বিরুদ্ধে কর্মকাণ্ড পরিচালনা করতে দেওয়া হবে না বলে নিশ্চয়তা দিয়েছিল তালেবান।

 

“নিজেদের দেওয়া প্রতিশ্রুতি মেনে চলতে তালেবানের অক্ষমতা বা অনিচ্ছার মুখেও আমরা আফগান জনগণকে বিস্তৃত ত্রাণ সহায়তা এবং তাদের মানবাধিকার বিশেষ করে নারী ও মেয়েদের অধিকার রক্ষায় পৃষ্ঠপোষকতার মাধ্যমে সমর্থন দিয়ে যাবো,” বিবৃতিতে বলেছেন ব্লিনকেন।

 

আল-কায়েদার প্রতিষ্ঠাতা ওসামা বিন লাদেন ২০১১ সালের ২ মে পাকিস্তানের অ্যাবোটাবাদে মার্কিন কমান্ডো হামলায় নিহত হওয়ার পর জাওয়াহিরি এ আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠনের নেতৃত্বে আসেন।

 

কয়েকটি বেসামরিক বিমান ছিনতাই করে ২০০১ সালে যুক্তরাষ্ট্রে আত্মঘাতী হামলা চালিয়ে ৩ হাজারের বেশি মানুষকে হত্যার ঘটনার অন্যতম পরিকল্পনাকারী হিসেবে বিবেচনা করা হয় মিশরীয় চিকিৎসক জাওয়াহিরিকে, যিনি সে সময় ওসামা বিন লাদেনের শীর্ষ উপদেষ্টা ছিলেন।