তিন দিনেও বিদ্যুৎ পায়নি সিলেটের অনেকেই

তিন দিনেও বিদ্যুৎ পায়নি সিলেটের অনেকেই

নিজস্ব প্রতিদেবকঃ
সিলেটের কুমারগাঁওয়ে জাতীয় গ্রিড লাইনে অগ্নিকাণ্ডের ফলে এখনও বিদ্যুতবিহীন অবস্থায় রয়েছে সিলেটের বেশিরভাগ এলাকা। অগ্নিকাণ্ডের পর মঙ্গলবার সকাল থেকে বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়ে সিলেট। এর প্রায় ৩১ ঘণ্টা পর বুধবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে নগরের কিছু এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হলেও এখনও অন্ধকারে রয়েছে জেলার বেশিরভাগ এলাকা।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার মধ্যে সিলেটের বিদ্যুৎ ব্যবস্থা পুরো স্বাভাবিক হতে পারে বলে জানিয়েছেন সিলেটের বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তারা। সিলেট নগর ও সদর উপজেলায় ভোগান্তিতে পড়েছেন প্রায় ৭৫ হাজার গ্রাহক।

বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড সিলেটের (বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগ) প্রধান প্রকৌশলী খন্দকার মোকাম্মেল হোসেন বলেন, ‘আমরা কাজ করে যাচ্ছি। আশা করছি বৃহস্পতিবার বাকি গ্রাহকদের আমরা বিদ্যুৎ সরবরাহ করতে পারব। বুধবার সন্ধ্যা ছয়টার আগপর্যন্ত প্রায় আড়াই লাখ গ্রাহক বিদ্যুৎ বঞ্চিত ছিলেন। ছয়টার পর থেকে আমরা প্রায় ৭০ থেকে ৭৫ শতাংশ গ্রাহকদের বিদ্যুৎ সরবরাহ করেছি। এর মধ্যে যেসব যন্ত্রপাতি পুড়ে গেছে, সেগুলো সংযোজন করা হয়েছে এবং আরও কিছুর কাজ চলছে।’ এদিকে, বিদ্যুৎ না থাকায় অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে সিলেটের বাসিন্দাদের। নগরজুড়ে দেখা দিয়েছে তীব্র পানি সঙ্কট।

বিদ্যুৎ বিভাগ সূত্রে জানা যায়, বুধবার রাত পর্যন্ত বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগ-১, ২ ও ৪ এর আওতাধীন কিছু এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু হয়েছে। বাকি এলাকাগুলো বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু করতে কাজ চলছে। তবে পুরো স্বাভাবিক হতে আরও কিছুটা সময় লাগবে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নগরীর জল্লারপাড়, মির্জাজাঙ্গাল, দাড়িয়াপাড়া, লামাবাজার, রিকাবিবাজার, দক্ষিণ সুরমা বিভিন্ন এলাকায় এখনও বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু হয়নি। বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন রয়েছে নগরের উপকণ্ঠের এলাকাগুলো ও বিভিন্ন উপজেলা।

সিলেট সিটি করপোরেশনের নির্বাহী প্রকৌশলী আলী আকবর বলেন, ‘আমাদের সিটি করপোরেশন এলাকায় আংশিক বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয়েছে। যেসব এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয়েছে সেসব এলাকার সিটি করপোরেশনের গভীর নলকূপকগুলো থেকে সঙ্গে সঙ্গে পানি সরবরাহ চালু করা হয়েছে। সিটি করপোরেশনের পাওয়ার ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্টও চালু করা হয়েছে। সাধারণত রাত আটটা পর্যন্ত সিটি করপোরেশনের আওতায় পানির পাম্পগুলো চালানো হতো, সেগুলো রাত দুইটা পর্যন্ত চালানো হয়েছে। আশা করছি শুক্রবার থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হলে সিটি করপোরেশনের পানি সরবরাহ স্বাভাবিক করতে পারব।