নোবেল পুরস্কারের জন্য মনোনীত বাংলাদেশি চিকিৎসক আবিদ

নোবেল পুরস্কারের জন্য মনোনীত বাংলাদেশি চিকিৎসক আবিদ

বাংলাভাষী ডেস্কঃ
বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত আমেরিকান চিকিৎসক ডা. রুহুল আবিদ এবং তার অলাভজনক সংস্থা হেলথ অ্যান্ড এডুকেশন ফর অল (হ্যাফা) যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাসাচুসেটস বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইউমাস) প্রস্তাবে নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছেন।

তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ব্রাউন ইউনিভার্সিটি আল্পার্ট মেডিকেল স্কুলের একজন অধ্যাপক। খবর দ্য বিজনেস স্ট্যান্ডার্ডের। ম্যাসাচুসেটস বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইউমাস) নৃ-তত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক জিন-ফিলিপ বেলিউয়ের বরাত দিয়ে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো এ খবর নিশ্চিত করেছেন।

২০২০ সালের নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য মনোনীত ২১১ ব্যক্তির মধ্যে ডা. আবিদ একজন। তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে স্নাতক এবং জাপানের নাগোয়া বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মলিকুলার বায়োলজি ও জৈব রসায়নে পিএইচডি অর্জন করেছেন। পরে ২০০১ সালে হার্ভার্ড মেডিকেল স্কুল থেকে ফেলোশিপ করেন। তিনি ব্রাউন গ্লোবাল হেলথ ইনিশিয়েটিভের একজন নির্বাহী অনুষদও।

হেলথ অ্যান্ড এডুকেশন ফর অল (হ্যাফা) বাংলাদেশের সুবিধাবঞ্চিতদের বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবা সরবরাহে নিযুক্ত হন ডা. আবিদ। গত তিন বছরে তার অলাভজনক প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ৩০ হাজারেরও বেশি তৈরি পোশাক শ্রমিককে বিনামূল্যে চিকিৎসাসামগ্রী সরবরাহ করা হয়। বাংলাদেশের ৯ হাজারেরও বেশি আরএমজি কর্মী ও সুবিধাবঞ্চিত মহিলার জন্য জরায়ু ক্যান্সারের স্ক্রিনিং চিকিত্সা এবং কক্সবাজারে দেড় লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা শরণার্থীকে বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবা দেয়া হয় হ্যাফার মাধ্যমে।

এখন তারা দুটি রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে কোভিড-১৯ সংক্রমণ মোকাবেলায় দক্ষতার প্রশিক্ষণ দিচ্ছেন। ২০১৩ সালে রানা প্লাজাধসের পর ডা. আবিদ বাংলাদেশজুড়ে আরএমজি কারখানার শ্রমিকদের স্বাস্থ্যসেবা সরবরাহের জন্য হ্যাফা প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।

হার্ভার্ড মেডিকেল স্কুলের ডা. রোজমেরি ডুডা এবং ডা. আবিদ ২০১৩ সালে ঢাকা, গাজীপুর ও শ্রীপুরে তিনটি কারখানায় আরএমজি কর্মীদের বিনামূল্যে স্বাস্থ্য স্ক্রিনিং এবং সেবা প্রদান করেছিলেন। এ প্রাথমিক পরীক্ষাগুলো হাইপারটেনশন, ডায়াবেটিস, রক্তস্বল্পতা, যক্ষ্মা এবং উচ্চঝুঁকিযুক্ত গর্ভাবস্থার দীর্ঘস্থায়ী রোগগুলোর জন্য বাংলাদেশি শ্রমিকদের ঝুঁকির মূল্যায়ন করেনভ এ রোগগুলোর ওপর দৃষ্টি নিবদ্ধ রেখে হ্যাফার পরবর্তী কাজগুলোকে প্রাধান্য দেন তিনি।

২০১৬ সালে ডা. আবিদ এবং তার হ্যাফার দলকে নিয়ে ডিজিটাল উদ্ভাবন ‘নিরোগ’ (‘রোগের অভাব বা অনুপস্থিতিতে অনুবাদ করা হয়েছে’) একটি সৌরচালিত, অফলাইন সক্ষম মোবাইল বৈদ্যুতিক মেডিকেল রেকর্ড (ইএমআর) সিস্টেম চালু্র মাধ্যমে দীর্ঘস্থায়ী রোগের রোগীদের চিকিত্সার রেকর্ডসহ সুবিধাভোগীদের জন্য মানসম্পন্ন স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থা নিশ্চিত করেন।

কক্সবাজারের কুতুপালং ও বালুখালী শিবিরে রোহিঙ্গা এবং হোস্ট কমিউনিটি রোগীদের জন্য দুটি বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবা ক্লিনিক পরিচালনা করেন তিনি। ২০১৭ সালের ৯ অক্টোবর থেকে হ্যাফা প্রতিটি রোগীর জন্য বার কোডসহ নিরোগ এবং একটি ডিজিটাল স্বাস্থ্য কার্ড সিস্টেম ব্যবহার চালু করেন।

নিরোগ হ্যান্ডহেল্ড ট্যাবলেটগুলোতে এনক্রিপ্ট হওয়া রোগীর ডেটা রেকর্ড করে, যা একটি সুরক্ষিত সার্ভারে সোলারচালিত ওয়াইফাই রাউটার ব্যবহার করে আপলোড করা হয়, যা ইন্টারনেট ছাড়াই কাজ করতে পারে।

ডা. আবিদের ক্লিনিকগুলো দীর্ঘমেয়াদি, দীর্ঘস্থায়ী অসুস্থতা এবং অসংক্রামক রোগ যেমন– ডায়াবেটিস, উচ্চরক্তচাপ, হাঁপানি, অপুষ্টি এবং জরায়ুর ক্যান্সারের চিকিত্সায় বিশেষজ্ঞ। ২০২০ সালের এপ্রিলে হ্যাফা ব্রাউন বিশ্ববিদ্যালয় এবং আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্যসেবা সংস্থা, প্রকল্পের হোপের সঙ্গে একটি সহযোগী প্রতিষ্ঠান হিসেবে কাজ শুরু করে। এপ্রিল থেকে আগস্ট পর্যন্ত ডা. আবিদ এবং হ্যাফা প্রায় ৩৫টি বিভিন্ন সংস্থার ১২০০টিরও বেশি বাংলাদেশি স্বাস্থ্যসেবা কর্মীর প্রশিক্ষণ দিতে সহায়তা করেছিল। কর্মসূচির সমাপ্তির পর, অংশগ্রহণকারীরা ২০২০ অক্টোবরের মধ্যে আরও প্রায় তিন হাজার ৬০০ স্বাস্থ্যসেবাকর্মীদের প্রশিক্ষণ দেবেন বলে আশা করা হচ্ছে।