প্রেস ক্লাবের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশে বিএনপি

প্রেস ক্লাবের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশে বিএনপি

বাংলাভাষী ডেস্ক 

বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর দাবিতে বিএনপি ঘোষিত ‘কঠিন’ সমাবেশ জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে শুরু হয়েছে। সোমবার (২২ নভেম্বর) সকাল ১০টায় ঢাকায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনের রাস্তা ও ফুটপাতে হাজারখানেক নেতা-কর্মীর উপস্থিতিতে এ সমাবেশ শুরু হয়।পরে সমাবেশে যোগ দিতে নেতাকর্মীরা বিচ্ছিন্নভাবে এ এলাকায় জড়ো হতে থাকেন। বর্তমানে সেখানে কয়েক হাজার বিএনপির নেতাকর্মী অবস্থান করছেন। তবে সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এখনও পৌঁছাননি। তবে উপস্থিত আছেন ঢাকা মহানগর উত্তরের আহ্বায়ক আমান উল্লাহ আমান, দক্ষিণের আহ্বায়ক আবদুস সালাম প্রমুখ।গত শনিবার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নিচতলায় দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন। এদিন একই দাবিতে গণঅনশন কর্মসূচি পালন করে বিএনপি।মির্জা ফখরুল বলেন, খালেদা জিয়ার মুক্তি ও তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার অনুমতি দেওয়ার দাবিতে ঢাকায় জাতীয় প্রেসক্লাবে এবং সারাদেশে মহানগর, জেলা ও উপজেলায় কঠিন সমাবেশ হবে। সমাবেশে আমরা আবারও এই দাবি নিয়ে সামনে আসবো। তারপরও যদি না হয়, আবারও কর্মসূচি ঘোষণা করবো এবং সেই কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দেশনেত্রীকে মুক্ত করা হবে।তিনি বলেন, এই সরকারকে খুব পরিষ্কার ভাষায় বলে দিতে চাই, খালেদা জিয়াকে অবিলম্বে মুক্তি দিয়ে তাকে বিদেশে চিকিৎসার জন্য পাঠানোর ব্যবস্থা করুন। তা না হলে এই যে আজ আন্দোলন শুরু হলো গণঅনশনের মধ্য দিয়ে, এই আন্দোলন আপনাদের গদিচ্যুত করবে। এটা আমাদের জীবন-মরণের সমস্যা, অধিকারের সমস্যা। মা ও মাটি বলতে আমরা খালেদা জিয়াকে বুঝি। সেই নেত্রীকে অবশ্যই আমাদের মুক্ত করতে হবে। তার জন্য যে কোনও ত্যাগ স্বীকার করতে আমরা প্রস্তুত আছি।তিনি বলেন, খালেদা জিয়া আজ এত অসুস্থ। তিনি আজ জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে অবস্থান করছেন। আমরা বিদেশে ডাক্তারদের সঙ্গে কথা বলেছি। বাংলাদেশে যে চিকিৎসা দেওয়া সম্ভব, চিকিৎসকরা তা দিয়েছেন। কিন্তু কতগুলো জটিলতা আছে যেগুলো বিদেশে আরও অ্যাডভান্স ট্রিটমেন্ট না হলে তাকে সুস্থ করা যাবে না। পরিবার থেকে আবেদন জানানো হয়েছে, বিদেশে নেওয়ার অনুমতি চেয়ে। সেই সুযোগ তারা দেয়নি, ফিরিয়ে দিয়েছে।