মেঘ ও পাহাড়

মেঘ ও পাহাড়

____ নাজনীন নাহার 

একটি পাহাড় ঘুরে এলাম 

অতোটা শক্ত বুকেও দেখে এলাম জলের শরীর 

খরধারায় সমতলমুখী, নাম তার ঝর্ণা জল।

আমি ছিলাম বিবর্তনমুখী, তবু আত্মায় ধারণ করলাম মেঘের সাথে পাহাড়ের বক্ষের আকর্ষণ, 

একনিষ্ঠ মনে মেঘের জলে প্রেমের সুধা 

অবগাহন করলাম মননদেশ থেকে পাহাড়ি প্রলয়ে,

সেখানে মেঘের সাথে পাহাড়ের বৃষ্টি প্রণয় দেখলাম 

আর অনুভব করলাম কিভাবে ঝর্ণা তার প্রেমময় আদর মিশিয়ে একাকার হয়েছে বহমান নদীর জলে,

একটি রুক্ষ পাহাড় আর মেঘের ঢেউ জলে 

দেখে এলাম সেই স্বতন্ত্র প্রেমের সৌন্দর্যতা 

ভিন্ন পথের পথিক দুজন তবু কেমন একই সমান্তরাল।

দেখে এলাম মেঘের সেই পাহাড়কে 

ভালোবেসে কিভাবে ছুঁয়ে আছে 

মেঘ তাকে অন্তরালে।

একটি পাহাড় ঘুরে এলাম দেখে এলাম

সেখানে পৌরুত্বের সে কি অসীম প্রগাঢ়তা 

মনে হলো যেন প্রেম তো দূর একটি ঘাসও বোধহয় জন্মাবে না ঐ শুকনো খটখটে পাহাড়ের বুকে,

কিন্ত তবু বুঝলাম সে এক বিশাল প্রেমিক!

পাহাড়ের যৌবন দেখলাম দুর্দান্ত, দুর্বার, দুর্জয় রূপে!

কিন্তু মেঘের কাছে সে একেবারে সুনির্মল শান্ত

ভালোবাসে সে মেঘকে, 

মেঘও পাহাড়কে জড়িয়ে রেখেছে ভালোবাসার আলিঙ্গনে।

একাকী আমি মুগ্ধ মননে অনুভব করলাম  

সেই পরিপূর্ণ প্রেমের জোয়ারে বৃষ্টি জল ভেসে চলেছে

ঝর্ণার সঙ্গমে প্রিয় সমুদ্র সুখের টানে।

এই বুঝি ভালোবাসার নিসর্গ রূপ!

সেই পাহাড়টা একাই ঘুরে এলাম,

নিঃশব্দে শৈল্পিক নিঃস্বার্থ ভালোবাসাও দেখে এলাম

একটি পাহাড় ঘুরে এলাম।