২৮ জনের মৃত্যুর দিনে, শনাক্ত ২৭৭২

২৮ জনের মৃত্যুর দিনে, শনাক্ত ২৭৭২

করোনায় আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় ২৮ জন মারা গেছেন। এ পর্যন্ত ৩ হাজার ১১১ জন মারা গেছেন। আর ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত হয়েছে ২ হাজার ৭৭২ জন। এখন পর্যন্ত ২ লাখ ৩৭ হাজার ৬৬১ জন শনাক্ত হয়েছে।  

২৪ ঘন্টায় নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ১৩ হাজার ১৭০ টি। আর পরীক্ষা করা হয়েছে ১২ হাজার ৬১৪ টি। এখন পর্যন্ত ১১ লাখ ৭৬ হাজার ৮০৯ টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ২১.৯৮ শতাংশ। ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ২ হাজার ১৭৬ জন। এখন পর্যন্ত সুস্থ ১ লাখ ৩৫ হাজার ১৩৬ জন। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৫৬.৮৬  শতাংশ  এবং শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুর হার ১.৩১ শতাংশ।

শুক্রবার (৩১ জুলাই) দুপুর আড়াইটায় কোভিড-১৯ সম্পর্কিত নিয়মিত স্বাস্থ্য বুলেটিনে এই তথ্য জানান স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা।

তিনি বলেন, মারা যাওয়াদের মধ্যে ২২ জন পুরুষ জন ও ৬ জন নারী। এখন পর্যন্ত ২ হাজার ৪৪৬ জন পুরুষ এবং ৬৬৫ জন নারী করোনায় মারা গেছেন। বয়স বিশ্লেষণে দেখা গেছে,  ৭১-৮০ বছরের মধ্যে ৪ জন, ৬১-৭০ বছরের মধ্যে ১০ জন, ৫১-৬০ বছরের মধ্যে ৭ জন, ৪১-৫০ বছরের মধ্যে দু'জন, ৩১-৪০ বছরের মধ্যে ৩ জন, ২১-৩০ বছরের মধ্যে দু'জন। বিভাগ বিশ্লেষণে দেখা যায় মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ঢাকা বিভাগে ১৩ জন,  চট্টগ্রাম বিভাগে ৮ জন, খুলনা বিভাগে ২ জন, রাজশাহী ৩ জন, বরিশাল বিভাগে একজন, রংপুর বিভাগে একজন।

অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে রাখা হয়েছে ৭৫৯ জনকে। বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন ১৮ হাজার ৩১০ জন।  ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশন থেকে ছাড় পেয়েছেন একহাজার ১৭ জন, এখন পর্যন্ত ছাড় পেয়েছেন ৩২ হাজার ৪০০ জন। এখন পর্যন্ত আইসোলেশন করা হয়েছে ৫০ হাজার ৭১০ জনকে।  প্রাতিষ্ঠানিক ও হোম কোয়ারেন্টিন মিলে ২৪ ঘণ্টায় কোয়ারেন্টিন করা হয়েছে ২ হাজার ৮৯ জন। এখন পর্যন্ত কোয়ারেন্টিন করা হয়েছে ৪ লাখ ৩৬ হাজার ৪৮৬ জনকে। কোয়ারেন্টিন থেকে গত ২৪ ঘণ্টায় ছাড় পেয়েছেন ২ হাজার ৬৯০ জন। এখন পর্যন্ত ছাড় পেয়েছেন ৩ লাখ ৭৯ হাজার ৬৬২ জন ছাড় পেয়েছেন। বর্তমানে মোট কোয়ারেন্টিনে আছেন ৫৬ হাজার ৮২৪ জন।