বৃহস্পতিবার ১ জানুয়ারি, ১৯৭০
শেষ মুহূ‌র্তে জ‌মে উঠে‌ছে বৈশাখি কেনাকাটা
১৩ এপ্রিল, ২০১৯

বাংলাভাষী ডেস্ক::রাত পোহালেই বাংলা সংস্কৃতির প্রধান উৎসব, প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখ। পুরাতনকে বিদায় দিয়ে নতুন বছর বরণ করবে বাঙালিরা। প্রতিটি উৎসবকে কেন্দ্র করেই বাঙালিরা বিকিকিনিতে মেতে ওঠে। পহেলা বৈশাখেও ধুম পড়েছে নানা পোশাক থেকে নানা কিছু কেনাকাটায়। স্বভাবতই বৈশাখি কেনাকাটায়  ভিড় জমে‌ছে রাজধানীর বিভিন্ন মা‌র্কেট ও বিপণিবিতানগুলোতে। নতুন বাংলাবর্ষকে বরণ করে নিতে তরুণ-তরুণীসহ বিভিন্ন বয়সীদের পদচারণায় মুখরিত রাজধানীর বিপণিবিতানগুলো। রাজধানীর নিউ মার্কেট, আজিজ সুপার মার্কেট, বসুন্ধরা সিটি, গু‌লিস্থানের বিভিন্ন মা‌র্কেট, রাজধানী সুপার মা‌র্কেট, শুধু শ‌পিংমল নয় ফুটপা‌তের দোকানগু‌লো‌তেও শেষ মুহূর্তের কেনাকাটায় রীতিমতো ভিড় জমিয়েছে নগরবাসী। বিশেষ করে বিকেল থেকে রাত পর্যন্ত ক্রেতা সমাগম থাকে চোখে পড়ার মতো। তবে সকা‌লে বা দুপ‌ুরেও চো‌খে প‌রে ক্রেতাদের। নিউ মা‌র্কে‌টের দোকানগু‌লো ঘু‌রে দেখা গে‌ছে, ভ্যাপসা গর‌মের ম‌ধ্যেও বৈশাখি কেনাকাটা কর‌তে সব শ্রেণি-পেশার মানুষের ছিল উপচেপড়া ভিড়।  পহেলা বৈশাখে মেয়েদের লাল-সাদা শাড়ির পাশাপাশি রয়েছে নানা ডিজাইনের নজরকাড়া পোশাক। এছাড়াও রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে বসেছে বাহারি চুড়ি-মালার পসরা। বাঙালি মে‌য়েরা বৈশাখের পোশাকের সাথে মিলিয়ে কিনছে রকমারি সব মালা, চুড়ি, কানের দুল, টিপ, চুলের ফিতাসহ সাজের নানা সামগ্রী। রাজধানীর ধানমন্ডির ২৭ নম্বরের জেনেটিক প্লাজার সামনে বসেছে এমনই এক মেলা। মেলাটিতে গিয়ে দেখা যায় নানা বয়সী নারীদের পাশাপাশি পুরুষরাও মেলায় ভিড় করেছে। কেউ নিজের জন্য চুড়ি কিনছেন কেউবা তার প্রিয়জনের জন্য কিনে নিচ্ছেন শখের চুড়ি।   নিউ মা‌র্কেট থে‌কে এক‌টি শা‌ড়ি কি‌নে‌ছেন ইডেন ক‌লে‌জে পড়ুয়া স্মৃ‌তি আক্তার। তি‌নি ব্রে‌কিং‌নিউজ‌কে ব‌লেন, ‘কয়েকদিন ধরেই নগরীতে  প্রচন্ড-গরম অনুভব করছি। তারপ‌রেও কেনাকাটা করতে আসলাম। কারণ বৈশাখ বলে কথা।’ ‌তি‌নি ব‌লেন, ‘এক‌টি শা‌ড়ি কি‌নে‌ছি আরও সালোয়ার কা‌মিছ কিন‌বো সা‌থে চু‌ড়িও কিন‌বো।’  ইডেন ক‌লে‌জের অপর এক ছাত্রী মোর‌শেদা বলেন, ‘বৈশাখে নতুন কিছু কেনা যেন বাধ্যবাধকতাই। অবশ্য এই দিনে নিজেকে শাড়িতেই দেখতে  চাই। তাই  বৈশাখী শাড়ি কিন‌তে এসেছি।’  অন্যদিকে, দিন দিন ইন্টারনেটের মাধ্যমে কেনাকাটার বাড়‌ছে। ঘরে বসেই পছন্দের শাড়ি, জামা, পাঞ্জাবি কিনা যা‌চ্ছে। এ প্রযুক্তির কল্যাণে অনলাইনে কেনাকাটায় জীবনকে করে তুলেছে গতিশীল।  ব্যাপ্তি বেড়েছে অনলাইন কেনাবেচারও। নিজের পছন্দমতো পণ্যটি বাছাই করা যাবে সরাসরি ফেসবুক পেজ বা নির্দিষ্ট হাউজের অনলাইন স্টোর থেকে। শপিং করতে থাকছে ক্যাশ অন ডেলিভারি, ক্রেডিট-ডেবিট কার্ডসহ সব ধরনের মোবাইল পেমেন্ট সুবিধা। তাই এ বৈশাখিতেও অ‌নে‌কে অনলাই‌লে কিনা কাটা কর‌ছেন। ইউডা ইউ‌নিভা‌র্সির শিক্ষার্থী  হাসনাত নাঈম ব্রে‌কিং‌নিউজ‌কে ব‌লেন, ‘প্রাই‌ভেট চাকরি ক‌রি। মা‌র্কে‌টে যাওয়ার সময় কই, তাই অনলাইন থে‌কে এক‌টি পাঞ্জা‌বি কি‌নে‌ছি।’ সকল বিপণিবিতানগুলোতে ক্রেতাদের ভিড় ছিল ঠাসা। শুধু বিত্তবানরা নন, বৈশাখের কেনাকাটা করছেন নিম্ন আয়ের ক্রেতারাও। ফার্মগেট, গুলিস্তান, মতিঝিল ও নিউমার্কেটের ফুটপাথে বিশেষ করে শিশুদের লাল-সাদা শাড়ি, পাঞ্জাবি, ফতোয়া বিক্রি হচ্ছে প্রচুর।  পহেলা বৈশাখের উৎসবে ক্রেতারাও পোশাক কেনার ক্ষেত্রে প্রাধান্য দিচ্ছেন দেশীয় পোশাককেই। তাই এই উৎসবকে কেন্দ্র করে দেশীয় ফ্যাশন হাউজগুলোর ব্যস্ততাও একটু বেশি। বিভিন্ন ফ্যাশন হাউজে বৈশাখ উপলক্ষে দেয়া হচ্ছে আকর্ষণীয় সব অফার।  বিপণিবিতানগুলোতে ঘুরে দেখা যায়, বৈশাখ উপলক্ষে ১২০০ টাকা থেকে শুরু করে সাড়ে ৬৫০০ হাজার টাকার মধ্যে সিঙেল কামিজ, শাড়ি এবং থ্রিপিস পাওয়া যাচ্ছে। এছাড়া ছেলেদের জন্য পাঞ্জাবি এবং ফতুয়ায়ও রয়েছে বৈশাখের রং।  দোকান্দাররা জানান , গত ২/৩ দিন থে‌কেই  ক্রেতাদের কাছ থেকে খুব ভাল সাড়া পাচ্ছি। বেচা-বি‌ক্রিও ভা‌লো হ‌চ্ছে। গত বছ‌রের চেয়েও বেশী লাভ হ‌বে ব‌লেও তারা জানান। এদিকে রাজধানীর নিউমার্কেট, চাঁদনী চক, গাউছিয়া এবং হকার্স মার্কেটে রয়েছে সব বয়সী মানুষের জন্য স্বল্প বাজেটে বাহারি রংয়ের সব পোশাক। দামের ক্ষেত্রেও রয়েছে ভিন্নতা। নিম্নবিত্ত থেকে শুরু করে সব শ্রেণির মানুষের বাজেটের মধ্যেই পাওয়া যাচ্ছে বাহারি রংয়ের সব পোশাক।  একাধিক ফ্যাশন হাউজের উদ্যোক্তারা জানান, নগরবাসী বাড়তি আমেজ নিয়ে পহেলা বৈশাখ উদযাপন করায় বাড়তি আয়োজন থাকে তাদের। পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে ফ্যাশন হাউজগুলো লাল সাদার ছোঁয়ার নতুন পোশাক বাজারে নিয়ে এসেছে।  গত দু’বছর থেকে বৈশাখ উপলক্ষে সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারী, সশস্ত্র বাহিনী ও বিজিবি সদস্য, রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের চাকরিজীবী এবং এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের নববর্ষ ভাতা নামে বোনাস দিচ্ছে। যে কারণে বৈশাখের কেনাকাটায় নতুন মাত্রা যোগ হয়েছে। বাঙালির প্রাণের উৎসব ঘিরে রাজধানীর বিভিন্ন মার্কেট ও ফুটপথ জুড়ে বৈশাখী আয়োজনে সাদা-লালে ছেয়ে গেছে। রকমারি পোশাকের পসরা সাজিয়ে বসেছে বিক্রেতারা। বেসরকারি প্রতিষ্ঠা‌নে চাকরি ক‌রেন আবু সা‌লেহ শাহাদাত। তি‌নি ব‌লেন, ‘শ‌পিং করার সময় পা‌চ্ছি না। অফি‌সের কা‌জের চা‌পে তাই আমার স্ত্রী আড়ং থে‌কে বৈশা‌খের সব কেনাকাটা ক‌রে‌ছে ।’ তি‌নি ব‌লেন, ‘আমার জন্য এক‌টি শার্ট ও এক‌টি পাঞ্জা‌বি কি‌নে‌ছে তার জন্য শা‌ড়ি ও সাদা জমিনে লাল স্ক্রিন প্রিন্টের একটি সালোয়ার-কামিজ কেনেন।’ ব্যবসায়ী সামিউল হোসেন স্ত্রী, ছেলেমেয়েকে নিয়ে রাজধানী মা‌র্কে‌টের দোকানে দোকানে ঢুঁ মারছেন ফ্যামিলি পোশাক কিনবেন বলে। তিনি বলেন, ‘উৎসবে সবাই মিলে একই পোশাক গায়ে জড়িয়ে বেড়াতে যাওয়ার অনুভূতি অন্য রকম। এতে পারিবারিক বন্ধন শক্ত হয়’। বিপণিবিতানের পাশাপাশি নিউমার্কেট ও গু‌লিস্থা‌নের গজ কাপড়ের দোকানদাররা জানান, এবছর তা‌দের ভা‌লো বেচা বি‌ক্রি হ‌য়ে‌ছে। কারণ জান‌তে চাই‌লে ব‌লেন, ‘গজ কাপড় কি‌নে নি‌জের পছন্দ ডিজাইন বানা‌তে পা‌রে তার জন্য গজ কাপড়ও কি‌নে থা‌কে।’

সম্পাদক : মোঃ ওলিউর রহমান খান প্রকাশক : মোঃ শামীম আহমেদ
ফোন : +44 07490598198 ই-মেইল : news@banglavashi.com
Address: 1 Stoneyard Lane, London E14 0BY, United Kingdom
  কপিরাইট © 2015-2017
banglavashi.com এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত
বাস্তবায়নে : Engineers IT