বৃহস্পতিবার ১ জানুয়ারি, ১৯৭০
টোল আদায়ে প্রচুর দুর্নীতি. স্থানীয় মাস্তানদের প্রভাব.
৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

আবু তালেব মুরাদ: ঘড়িতে বিকেল সাড়ে চারটা,আমাদের রিজার্ভ বাস নিয়ে কুয়াকাটা থেকে রওয়ানা হলাম সিলেটের উদ্যেশ্যে. কুয়াকাটা শহর থেকে বের হওয়ার সময় বাস থামালো ৫/৬ জন যুবক. ড্রাইভার কে বললো টোলের দুইশত টাকা দিতে.আমি ড্রাইভারের ঠিক কাছাকাছি বসা,গাড়ীতে সিলেটের গণ্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ প্রায় ২৮ জন.আমি ড্রাইভার কে বললাম টাকা দাও এবং প্রাপ্তির রশীদ দিতে বলো.যুবকের মধ্যে একজন বললো রশীদ নাই তবে সাদা কাগজে লিখে দিবো.ব্রীজ ছাড়াও টোল নিতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ.এই কথা শুনে আমি ছেলেদের জিজ্ঞেস করলাম প্রধানমন্ত্রী কি তোমাদের দায়িত্ব দিয়েছেন রাস্তায় গাড়ী থামিয়ে টোল আদায়ের.বললাম এখুনি ফোন দিচ্ছি প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সচিবকে. অবস্থা বেগতিক দেখে ড্রাইভারকে বলে যান যান পিছনে অনেক জট লেগে গেছে.আমরাতো পার পেয়ে গেলাম,বাকীরা বাঁচার উপায় আছে বলে মনে হয় না.এছাড়াও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাদের দেশে টোল আদায় নিয়ে হচ্ছে  প্রচুর দুর্নীতি. প্রতিদিন টোল আদায়ের অর্ধেকেরও বেশী টাকা যাচ্ছে এক শ্রেনীর দুস্কৃতকারীদের পকেটে,সরকার তা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে. এখানে স্থানীয় মাস্তানদের প্রভাব পরিলক্ষিত হচ্ছে.কম্পিউটারাইজড মিশিন ছাড়া শতকরা ৮০ ভাগ টোল কাউন্টারে থাকে ডুপ্লিকেট রিসিট বই.তাই দুর্নীতি বন্ধ করতে হলে প্রতিটি টোল বক্সে ডিজিটাল মেশিন বসানো অতিব জরুরী.

সম্পাদক : মোঃ ওলিউর রহমান খান প্রকাশক : মোঃ শামীম আহমেদ
ফোন : +44 07490598198 ই-মেইল : news@banglavashi.com
Address: 1 Stoneyard Lane, London E14 0BY, United Kingdom
  কপিরাইট © 2015-2017
banglavashi.com এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত
বাস্তবায়নে : Engineers IT