বৃহস্পতিবার ১ জানুয়ারি, ১৯৭০
বিশ্ব ইজতেমার শেষ হলো আখেরি মোনাজাত
১২ জানুয়ারি, ২০২০

 

বাংলাভাষী ডেস্ক ::বিশ্বশান্তি, পরকালীন মুক্তি এবং ইহকালীন কল্যাণ কামণায় শেষ হয়েছে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বের আখেরি মোনাজাত। পাপ থেকে মুক্তি, ভালো কাজের অনুপ্রেরণা পেতে দোয়ায় অংশ নিয়েছেন সারাদেশের লাখো মানুষ।

সকাল ১১টা ৮মিনিটে শুরু হয়ে চলে ৩৩ মিনিট ধরে। বিশ্বশান্তি কামনায় মোনাজাত পরিচালনা করেন তাবলিগ জামাতের মুরব্বি ও কাকরাইল মসজিদের খতিব মাওলানা জুবায়ের আহমেদ। মোনাজাতে ব্যক্তিজীবন থেকে শুরু করে জীবনের সবকিছুর জন্য আল্লাহর কাছে দোয়া চান মুসল্লিরা।

এ সময় পুরো টঙ্গী এলাকা ‘আমিন আমিন’ ধ্বনিতে মুখরিত হয়ে ওঠে। মানুষ চোখের পানি আর আমিন ধ্বনিতে আল্লাহর কাছে শান্তি, কল্যাণ ও মুক্তি কামনা করেন।

এর আগে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বের মোনাজাতে অংশ নিতে তুরাগ তীরে মুসল্লিদের ঢল নেমেছে। রবিবার সকাল থেকে তীব্র শীত ও যাতায়াতের ভোগান্তি উপেক্ষা করে ইজতেমা আসছেন ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা। বৃহস্পতিবার শুরু হওয়া ইজতেমার প্রথম পর্ব শেষ হবে আজ আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে।

ইজতেমা ময়দানে আগে থেকে বয়ান শুনতে কয়েক লাখ মুসল্লি অবস্থান করছেন। আজকে মোনাজাতে অংশ নিতে আসছেন হাজারো ধর্মপ্রাণ মুসল্লি। সকাল থেকেই ময়দানমুখী মুসল্লিদের শ্রোত দেখা গেছে টঙ্গীমুখী সবগুলো রাস্তায়। বাস, ট্রাক, নৌকাসহ বিভিন্ন মাধ্যম ও পায়ে হেটে আসছেন তারা।

ইতোমধ্যেই মোনাজাতে অংশ নিতে ময়দানের আশপাশের বিভিন্ন অলিগলি, বাসা-বাড়ি, কল-কারখানার ছাদসহ মহাসড়কের বিভিন্নস্থানে পলিথিন, পত্রিকা ও পাটি বিছিয়ে বসে পড়েছেন।

ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক, টঙ্গী-ঘোড়াশাল সড়ক ও টঙ্গী-কামারপাড়া সড়ক মুসল্লিদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে রয়েছে। মুসল্লিরা যে যেখানে সুবিধাজনক জায়গা পাচ্ছেন, সেখানেই বসে পড়ছেন মোনাজাতে অংশ নিতে।

রবিবার মোনাজাতের মাধ্যমে শেষ হবে জুবায়েরপন্থিদের প্রথম পর্বের ইজতেমা। আবার ১৭ জানুয়ারি সাদপন্থিদের দ্বিতীয় পর্বের ইজতেমা শুরু হয়ে ১৯ তারিখ শেষ হবে।
আখেরি মোনাজাত উপলক্ষে টঙ্গী এলাকাজুড়ে আইনশৃঙ্ক্ষলা বাহিনীর পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে বাড়তি নিরাপত্তা।

সম্পাদক : মোঃ ওলিউর রহমান খান প্রকাশক : মোঃ শামীম আহমেদ
ফোন : +44 07490598198 ই-মেইল : news@banglavashi.com
Address: 1 Stoneyard Lane, London E14 0BY, United Kingdom
  কপিরাইট © 2015-2017
banglavashi.com এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত
বাস্তবায়নে : Engineers IT