বৃহস্পতিবার ১ জানুয়ারি, ১৯৭০
আমাদের থেকে নাকি আমেরিকা করোনার সরন্জাম নিতে চাচ্ছে
২৬ মার্চ, ২০২০

 

ব্যারিস্টার_ফারাহ_খান

 

আমাদের সরকারের না করোনা নিয়ে ব্যবস্থা উন্নত দেশ গুলোর থেকেও ভাল! আবার উচ্চ পদস্থ ‘নিম্ন বুদ্ধির’ এক মন্ত্রী কে বলতে দেখলাম- আমাদের থেকে নাকি আমেরিকা করোনার সরন্জাম নিতে চাচ্ছে। তাহলে তো খুব ভাল কথা। নিশ্চয় আমাদের নিজস্ব চাহিদা মিটেয়ে ফেলেছেন আর এখন বাড়তি সরবরাহ থাকার কারণে আমেরিকা কে দিতে পারবেন। নাকি মন্ত্রী সাহেব, এই করোনার দুর্দিনেও টাকার লোভ লালসা সামলাতে পারছেন না! তাই দেশে থাকুক আর না থাকুক, আমাদের ডাক্তাররা বাচুক কিংবা মরুক তা চিন্তা না করেই আমেরিকা আমেরিকা করছেন!! বলা বাহুল্য, পারসোনাল প্রটেকটিভ ইকুইপমেন্ট বা পিপিই হলো করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে মুক্ত থেকে চিকিৎসা সেবা দেওয়ার জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা নির্দেশিত পোশাক নীতিমালা। এর আওতায় রয়েছে মেডিকেল মাস্ক, গাউন, গগলস, ফেস শিল্ড, হেভি ডিউটি গ্লাভস ও বুট। করোনাভাইরাসের উপসর্গ আছে এমন রোগীকে ব্যক্তিগত সুরক্ষা পোশাক (পিপিই) ছাড়াই প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার নির্দেশ জারি করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। আজ বুধবার এই নির্দেশ জারির পর চিকিৎসকদের মধ্যে নতুন করে উদ্বেগ দেখা দেয়। অন্যদিকে আজ রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, এখন পর্যন্ত পিপিই পাওয়া গেছে ৩ লাখ ৫৭ হাজার। এর মধ্যে ২ লাখ ৯১ হাজার বিতরণ করা হয়েছে। আমিনুল হাসান বলেন, ইতিমধ্যে বিতরণ করা পিপিইগুলো চিকিৎসকদের হাতে পৌঁছেছে। চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, একটি পিপিই একবারের বেশি পরা যায় না। নাম না প্রকাশ করার শর্তে একজন চিকিৎসক বলেন, কোথাও কোথাও এক পিপিই ভাগ করে পরতে বলা হয়েছে। এদিকে সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, খুলনা স্বাস্থ্য বিভাগ ও ময়মনসিংহের সিভিল সার্জন নিজ দায়িত্বে চিকিৎসকদের পিপিই সংগ্রহের নির্দেশ জারি করেন। সিভিল সার্জন এ বি এম মশিউল আলমের লেখা ওই চিঠিতে বলা হয়, যেহেতু বারবার চাহিদাপত্র পাঠানোর পরও কেন্দ্রীয়ভাবে চাহিদা মোতাবেক পিপিই সরবরাহ করা হচ্ছে না, এমন পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক স্থানীয়ভাবে পিপিই সংগ্রহের নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি চিকিৎসকদের কমপক্ষে ২০ সেট সার্জিক্যাল গাউন, ক্যাপ, মাস্ক তৈরি করে প্রতিদিন অটোক্লেভ করে ব্যবহারের নির্দেশ দেন। তিনি আরও বলেন, ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ তাঁকে চিকিৎসকদের রেইনকোট, কিচেন গ্লাভস ও কাপড়ের তৈরি মাস্ক ব্যবহার করতে বলেছেন। আসুন, অনেক গালাগালি তো করেছি ডাক্তারদের, ভবিষ্যতেও করবো কোন অসুবিধা নেই। আমাদের দেশের বেশির ভাগ ডাক্তাররা কেমন তা কম বেশি আমরা সবাই জানি। কিন্তু এখন ঔ হিসাব করার সময় না। এই করোনার দুর্দিনে ডাক্তাররাই আমাদের ‘front line soldier’। আজরাইল যখন মৃত্যুদূত হয়ে আসছে তখন আর কয়েকটা মিনিট বেশি বাঁচানো যায় কিনা তার জন্য এই ডাক্তাররাই চেষ্টা করে যাচ্ছেন। সুতরাং উনাদের পাশে দাঁড়ানো আমাদের দায়িত্ব। উনাদের জন্য না হলেও অন্তত নিজের জন্য হলেও এগিয়ে আসুন এবং সরকার ও প্রশাসন কে জানান দিন যত তাড়াতাড়ি সম্ভব হরিলুট বন্ধ করে আমাদের ডাক্তারদের কাছে পর্যাপ্ত পরিমান পারসোনাল প্রটেকটিভ ইকুইপমেন্ট বা পিপিই, মানে- মেডিকেল মাস্ক, গাউন, গগলস, ফেস শিল্ড, হেভি ডিউটি গ্লাভস ও বুট পৌছে দিতে। সবাই সুস্থ থাকুন, নিরাপদে থাকুন এই কামনা করি। 

সম্পাদক : মোঃ ওলিউর রহমান খান প্রকাশক : মোঃ শামীম আহমেদ
ফোন : +44 07490598198 ই-মেইল : news@banglavashi.com
Address: 1 Stoneyard Lane, London E14 0BY, United Kingdom
  কপিরাইট © 2015-2017
banglavashi.com এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত
বাস্তবায়নে : Engineers IT